Our Concern
Ruposhi Bangla
Hindusthan Surkhiyan
Radio Bangla FM
Third Eye Production
Anuswar Publication
Ruposhi Bangla Entertainment Limited
Shah Foundation
Street Children Foundation
June 18, 2024
Homeযুক্তরাষ্ট্রইতিহাসের কাঠগড়ায় দায়ী থাকবেন ট্রাম্প: মাইক পেন্স

ইতিহাসের কাঠগড়ায় দায়ী থাকবেন ট্রাম্প: মাইক পেন্স

ইতিহাসের কাঠগড়ায় দায়ী থাকবেন ট্রাম্প: মাইক পেন্স

ক্যাপিটল হিল হামলা যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এক কলঙ্কময় ঘটনা। ২০২০ সালের নির্বাচনে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে ব্যর্থ হন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরই পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচনী ফলাফলকে বানচাল করতে ট্রাম্প সমর্থকরা মার্কিন আইনসভা কংগ্রেসের ভবনটিতে হামলা চালায়। আদালতের কয়েক দফা শুনানি ও তদন্তের পরও সেই অভিযোগ এখনো ঘিরে আছে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে সম্প্রতি মুখ খুলেছেন ট্রাম্পের অধীনস্থ সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। এক সময়ের বস ট্রাম্পের কঠোর তিরস্কার করছেন পেন্স। তিনি বলেন, ‘৬ জানুয়ারি ২০২১ হামলার জন্য ইতিহাসের কাঠগড়ায় দায়ী থাকবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।’ খবর রয়টার্স, দ্য হিল ও আল জাজিরা।

রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঘটনার দিন ক্যাপিটল ভবনে মাইক পেন্স উপস্থিত ছিলেন। ওই সময়ে হাজার হাজার ট্রাম্প সমর্থক সেখানে ঢুকে পড়ে। ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল অনুমোদনে কংগ্রেসকে বাধা দেয়াই তাদের উদ্দেশ্য ছিল। কেননা ডোনাল্ড ট্রাম্প ওই নির্বাচনে জো বাইডেনের কাছে বড় ব্যবধানে পরাজিত হন। যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট সিনেটের সাংবিধানিক প্রধান। এজন্য পেন্স ওইদিন ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট অনুমোদনের আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব পালন করছিলেন। এমন অবস্থায় ট্রাম্প বেশ কয়েকটি টুইট করেন। যার মধ্যে একটিতে রিপাবলিকানদের যুদ্ধ করার আহ্বান জানানো হয়। অন্যান্য কয়েকটি টুইটে ভোট জালিয়াতির মিথ্যা দাবি করা হয়। পাশাপাশি ফলাফল যাচাইয়ে পেন্সের অংশ নেয়ার সমালোচনাও করেন ট্রাম্প।

ওয়াশিংটন ডিসিতে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বার্ষিক হোয়াইট-টাই ইভেন্ট ‘গ্রিডিরন ডিনারে’ অংশ নিয়ে মাইক পেন্স সেখানে জড়ো হওয়া সাংবাদিক ও অতিথিদের উদ্দেশে বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভুল করেছিলেন।’ নির্বাচন বাতিল করার অধিকার আমার ছিল না। তার বেপরোয়া কথাগুলো আমার পরিবার এবং সেই দিন ক্যাপিটল ভবনের সবাইকে বিপদে ফেলেছিল। এর দায় তিনি এড়াতে পারবেন না। ইতিহাস ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সর্বদাই কাঠগড়ায় দাঁড় করাবে।’

ক্যাপিটল হিলের ঘটনার পর পেন্স খুব কম সময়ই ৬ জানুয়ারিতে বক্তব্য দিয়েছেন। তবে এরপর তিনি ট্রাম্পের কঠোর সমালোচনা শুরু করেন। সাম্প্রতিক মিডিয়া সাক্ষাৎকারে তেমনটাই লক্ষণীয়। নভেম্বরে প্রকাশিত একটি স্মৃতিগ্রন্থে তিনি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তোলেন। এর মধ্যে গুরুতর অভিযোগ হলো পেন্সের পরিবারকে বিপন্ন করার হুমকি দিয়েছেন ট্রাম্প।

তবে ক্যাপিটল হিল হামলা নিয়ে পেন্সের সাম্প্রতিক মন্তব্য অত্যন্ত স্পষ্ট। তিনি বলেন, ‘সেদিন যা ঘটেছিল সেটি ছিল লজ্জাজনক। এটি অন্য কোনোভাবে চিত্রিত করার উপায় নেই। যতদিন আমি বেঁচে থাকব ওই দিনটি ভুলব না। সেদিনের ধ্বংসযজ্ঞ, প্রাণহানি অথবা সেই দুঃস্বপ্নের দিনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বীরত্বকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই।’

পেন্সের এ বক্তব্যের বিষয়ে জানতে ট্রাম্পের প্রতিনিধিদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে সংবাদমাধ্যমগুলো। তবে ট্রাম্পের প্রতিনিধিরা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার পর ট্রাম্পের সঙ্গে পেন্সের সম্পর্ক জটিল হয়েছে। এর আগে সাবেক প্রেসিডেন্টের আচরণের সমালোচনা করলেও কঠোর ও তিরস্কারমূলক বক্তব্য দেননি পেন্স। তিনি ক্যাপিটল হামলার তদন্তকারী হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভ কমিটিকে সহযোগিতা করতেও অস্বীকার করেন।

২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্য রিপাবলিকান প্রার্থী হওয়ার কথা ভাবছেন মাইক পেন্স। বিশ্লেষকরা বলছেন, সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্টের সাম্প্রতিক বক্তব্য ইঙ্গিত দেয়, ২০২৪ সালের নির্বাচনী উত্তাপ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্রাম্পের থেকে নিজেকে আরো দূরে রাখতে চাইছেন পেন্স। এছাড়া ট্রাম্পের অনুগত রিপাবলিকান সমর্থকদের বিচ্ছিন্ন করাও এর উদ্দেশ্য হতে পারে।

Share With:
Rate This Article
No Comments

Leave A Comment